দাঁড়কাক

()

কা কা কা….!
কাকের স্বর এত কর্কশ এত অন্তর্ভেদী হতে পারে ? জীবনে শোনা হয়নি ।
মাদকতা ছড়ানো দাঁড়কাকের ডাক শুনতে শুনতে জিজ্ঞাসু চোখ মেলে ইহকাল ত্যাগ করলেন ফিরোজ সাহেব ।
মৃত্যুর সর্বশেষ সর্বগ্রাসী দীর্ঘশ্বাসটুকু ছাড়ার আগে তিনি কয়েকটা মুহূর্ত পেয়েছিলেন চিন্তা করার ।
অন্তিম চিন্তা । চিন্তাগুলো ভাসা ভাসা । খানিকটা স্বপ্নের মত ।
কাঁচবন্দি আইসিইউ রুমে কাক কোথা থেকে এল? পয়লা এই প্রশ্নটা মাথায় ঘুরপাক খেতে লাগল ।
অথচ তিনি আরো স্পষ্টতর শুনতে পাচ্ছেন কা কা কা…!
কাক ডাকলে নাকি কপালে মন্দ ঘটে । বিপদ আসে এমনকি মানুষ মারা যেতে পারে । ধুর এতো কুসংস্কারচ্ছন্ন মানুষের প্রলাপ ।
তার বিজ্ঞান মনস্কতা তখনো টনটনে ।
হঠাৎ তার শ্বাস নিতে কষ্ট হতে লাগল । অক্সিজেনের নল তার নাকেমুখে লাগানো ।
স্মৃতির নিউরনে জুড় ঘূর্ণিঝড় ।
ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার আগে হন্তদন্ত হয়ে বাজার করা । আক্রান্ত রোগীদের জন্য সংগৃহীত ফান্ড থেকে বিরাট অঙ্ক সরিয়ে ফেলা । এক হাজার টাকার দশটা বান্ডিল কাপড়ের আলমারির নিচে রাখা । একথা কেউ জানেনা ! এই ঘোরলাগা অন্তিমশয্যায় তার ঐ টাকাগুলোর জন্য চিন্তা হতে লাগল ।
হঠাৎ একটা তরুণের মুখ তার চোখের সামনে জ্বলজ্বল করে উঠল ।
অপজিশান পার্টির এই ছেলেটাকে মেরে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দিয়েছিল সে । কাজটি হয়েছিল অত্যন্ত নিখুঁতভাবে । এখনো তার পরিবার জানেনা । সে যে মারা গেছে ।
তার আগেপরে অবশ্য বেশকটা খুন করতে হয়েছে তাকে ।
সবি তো পার্টির স্বার্থে, দেশের স্বার্থে !
আদাবরের ম্যাসআথেকে পুলিশের সহায়তায় যেদিন ছেলেটাকে ধরে নিয়ে আসা হয় সেদিন ছিল বেশ রাত ।
পৌষের রাত । প্রায় জনমানবহীন রাজপথ ।
গুলিটা অবশ্য ইনস্পেকটর সাহেবই করতে চেয়েছিল কিন্তু শেষতক ফিরোজই করল ।
কিন্তু ও তো বেঁচে নেই । নচ্ছার ছেলেটা এখানে এলো কি করে ?
দেখ বাবা আমি তোমাকে মারতে চায়নি । ওপর থেকে নির্দেশ ছিল । তোকে না খুন করলে আমার পদ-পদবী হাত ছাড়া হয়ে যেত ।
তুমি এখানে এলে কি করে ?
এই করিম, করিম । কই তুই শুয়োরের বাচ্চা !
এই ছেলেটাকে বের করে দে ।
স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে পিএসকে ডাকে ।
গলার স্বরে ক্ষমতার দম্ভ আন্দাজ করা যায় ।
কিন্তু হায় অনেক চেষ্টা করেও সে নিশ্বাস নিতে পারল না ।
চোখ বড়বড় করে তাকি দেখে অক্সিজেনের মাস্কটা খুলে ফেলেছে ঐ ছেলেটা ।
মৃত্যুর পর তার চোখদুটোতে ছিল নিদারুণ বিস্ময় । যেন কোটর থেকে বের হয়ে যাবে….।

লেখাটি কতটুকু গুরুত্বপূর্ণ?

লেখার উপরে এই লেখার মোট রেটিং দেখুন

এখন পর্যন্ত কোনও রেটিং নেই! এই পোস্টটি রেটিং করুন

ব্লগপোষ্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ব্লগার হুসাইন দিলাওয়ার

লেখক ও সাহিত্য সংগঠক

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: আমার কলম কপিরাইট আইনের প্রতি শ্রদ্ধশীল সুতরাং লেখা কপি করাকে নিরুৎসাহিত করে। লেখার নিচে শেয়ার অপশন থেকে শেয়ার করার জন্য আপনাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।