বামপন্থী নয় সাম্যবাদীরায় সঠিক কমিউনিস্ট

বিশ্বজুড়ে কমিউনিস্টদের আরেকটি পরিচয় রয়েছে, তা হচ্ছে বামপন্থী। এর বিপরীতে রয়েছে ডানপন্থী। বলা হয় কথিত এ বামপন্থী প্রগতিশীল, ডানপন্থীরা রক্ষণশীল। ১৯১৭ সালে রুশ বিপ্লবের আগে অথবা পরে থেকে দুনিয়াজুড়ে কমিউনিস্টরা বামপন্থী পরিচয়েএ লালিত হয়ে আসছে। ইতিহাসবিদরা মনে করেন, ফরাসি বিপ্লবের পর (১৭৮৯-১৭৯৯) ফ্রান্সের আইন সভায় স্পিকারের ডান পাশে বসেছিলেন রক্ষণশীল সনোভাবের সংসদ সদস্যরা, আর বাম পাশে বসেছিলেন অপেক্ষাকৃত বিপ্লবী মনেভাবাপন্ন সদস্যরা। সে থেকে সারা বিশ্বে বামপন্থী ও ডানপন্থী শব্দ দুটো চালু হয়ে যায়। এখন আমরা বর্তমান সমাজতন্ত্র বা সম্যবাদের প্রতিশব্দ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল প্রথম কমিউনিস্ট তত্ত্ববিদ কাল মার্কস ও ফ্রেডারিক এঙ্গেলসের রচনা সমগ্রে তারা নিজেদের কোথাও বামপন্থী বলে পরিচয় দেননি। এবংকি কমিউনিস্ট ইশতাহারে কোথাও বামপন্থী বা বামপন্থা শীর্ষক কোন শব্দ নেই। সেখানে সর্বত্র রয়েছে সমাজতন্ত্রী অথবা বিরোধী শক্তি হিসাবে ইউটোপীয় সমাজতন্ত্রী শব্দ। কোথাও কোথাও এমন লেখা আছে ১৮৩০ এর দশকে মার্কস নিজে পরিচিত ছিলেন বামপন্থী হেগেলিয়ান বলে। যদিও তা জড়িয়ে ছিল দার্শনিক হেগেলের মতবাদের সঙ্গে। তবে সমাজতন্ত্রীদের সাথে ব্যাপারটা তখনো কোনভাবেই নয়। ১৯১৭ সালে অনুষ্ঠিত রুশ বিপ্লবের আগে পরে বিভিন্ন বক্তৃতায় ও লেখালেখিতে লেনিন বামপন্থা ও বামপন্থী প্রসঙ্গে বিভিন্ন কথা বলেছেন ও লিখেছেন। আমরা বামপন্থী শব্দ সমাজতান্ত্রিক আন্দেলনে ব্যবহার করলেও দেখতে হবে কমরেড লেনিন কি বোঝাতে চেয়েছেন, কাদের বোঝাতে চেয়েছেন। কমরেড লেনিন লিখেছে : সোশ্যালিস্ট রেভ্যুলেশনারিদের কাছে বামপন্থার অর্থ ছিল জার্মান সোশ্যাল ডেমোক্রেসির অপেক্ষাকৃত ছোট ছোট সুবিদাবাদী পার্টি নিয়ে হাসাহাসি  করতো দৃষ্টান্তস্বরূপ ভৃমি সমস্যায় বা প্রলেতারীয় একনায়কত্বের প্রশ্নে সেই পার্টির চরম সুবিধাবাদীদেই অনুন্নত। শ্রমিক আন্দোলনের অভ্যন্তরর কোন কোন শত্রুর সঙ্গে সংগ্রামে বলশেভিকবাদ বেড়ে ওঠে, শক্তি অর্জন করে ও পোক্ত হয়, কমিউনিজমের বামপন্থা শিশুরোগ গ্রন্থের প্রবন্ধ , এখানকার ইব্দুতির সূত্র : শ্রমিক শ্রেণির আন্দোলনে গোঁড়ামি ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লেনিনের প্রবন্ধ ও বক্তৃতায় সংকলন প্রগতি প্রকাশন, মস্কো,১৯৬৬ সালে প্রকাশ পায়। এবং পূর্বোক্ত মূল গ্রন্থে লিখেছেন : বলশেভিকবাদ তার নিজ পার্টির বামপন্থী বিচ্যুতির বিরুদ্ধে যে সংগ্রাম চালায় তা দিবানর বিশেষ রকমারি বৃহৎ আয়তন লাভ করে ১৯০৮ সালে একান্ত প্রতিক্রিয়াশীল পার্লামেন্টে এবং একান্ত প্রতিক্রিয়াশীল আইনে সস্কুচিত আইনসঙ্গত শ্রমিক সমিতিগুলোতে অংশ নেয়ার প্রশ্নে এবং ১৯১৮ সালে ( ব্রেস্তশান্তি) কোন রকম আপোস করা বলে কিনা এ প্রশ্ন নিয়ে । এখানে লেনিন বলেছে বামপন্থী  হলে ছোট ছোট সুবিধাবাদী গোষ্ঠি অথবা চরম সুবিধাবাদীদের অনুসরণকারী। পরে লেনিনের ভষ্যে বোঝা যাচ্ছে কমিউনিস্টরা ( বলশেভিকরা) তার নিজ পার্টির একটি বিচ্যুতির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছিল, সে বিচ্যুতিকে লেনিন নাম দিয়েছিলেন বামপন্থী বিচ্যুতি। এ বামপন্থীরা একটা সময় পর্যন্ত কমিউনিস্ট পার্টির সাথে ছিল। তারা পার্টির ভিতরে বিশেষ গোষ্ঠী বা ফ্যাকশনই শুধু গড়ে তোলে তা-ও বেশি দিনের জন্য নয়। একটি সময় সোশ্যালিস্ট রেভ্যুলেশনারি পার্টির অভ্যন্তরর বামপন্থী বলে একটি অংশ গড়ে ওঠে ও ১৯১৭ সালের শেষের দিকে তারা স্বাধীন বামপন্থী সোশ্যালিস্ট রেভ্যুলেশনারি পার্টি গঠন করে। রাশিয়ায় বৈদেশিক হস্তক্ষরপের যুদ্ধ ও গৃহযুদ্ধের সময় এসব বামপন্থী সোশ্যালিস্ট রেভ্যুলেশনারিরা প্রতিবিপ্লবী ষড়যন্ত্রে অংশ নেয় এবয় সোভিয়েত রাষ্ট্র ও কমিউনিস্ট পার্টির কর্মীদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাতে থাকে। এবংকি এই বামপন্থীদের সাথে কমিউনিস্ট পার্টির সংগ্রাম বাধে বিশ্বযুদ্ধ বন্ধ ও শান্তি চুক্তি জার্মানির সাথে সম্পাদনের সময়ও। তারমানে বুঝা যাচ্ছে বামপন্থীরা তখন থেকেই সুবিধাবাদী, সঠিক কমিউনিস্টি কখনোই সুবিধাবাদী হতে পারে না। আর লেনিন এর কথায় বুঝা যাচ্ছে বামপন্থীরা সব সময় সুবিধাবাদী তাহলে আমার প্রশ্ন হল বর্তমান বামপন্থী নামে যে সব দল আছে তারা কি সেই সুবিধাবাদীদের দলে না কি সঠিক কমিউনিস্ট? সঠিক কমিউনিস্ট পার্টি এক দিন আমাদের দেশে বিপ্লবের ডাক দিবে এই আশাতে বুকবাধি আমি! জয় হক সকল মেহনতি মানুষের!

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ব্লগার প্রসেনজীৎ কুমার রায়

আমি প্রসেনজীৎ কুমার রায়, রাজবাড়ীতে থাকি, রাজবাড়ী জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।