ইতিহাস

অযত্ন অবহেলায় রামুর দ্বিতীয় জাদী “ত্ব ক্যাং”

কক্সবাজার জেলা সদর থেকে রামু উপজেলা মাত্র এগারো কিলোমিটারের পথ। পুরো রামু উপজেলা জুড়ে রয়েছে বৌদ্ধ ও মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রাচীন ও পুরানো সব ধর্মীয় স্থাপনা। রামু উপজেলার বিশাল বিশাল পাহাড় সম্বলিত একটি এলাকা রাজারকুল ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নের পূর্ব রাজারকুল গ্রাম জুড়ে প্রায় ১০ টি মতো বড় বড় পাহাড় রয়েছে যেগুলোর দু’ একটি পাহাড়ে রয়েছে বৌদ্ধ ধর্মের পুরানো নিদর্শন। তার মধ্যে কথিত বার্মা পাড়া সংশ্লিষ্ট পাহাড়ে মিলেছে প্রায় একশো বছরের পুরানো …

বিস্তারিত পড়ুন

রামুর প্রাচীন “লাওয়ে জাদী” ধ্বংসের মুখে

কক্সবাজার জেলার নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি রামু উপজেলায় রয়েছে নানান প্রাচীন স্থাপনা এবং ইতিহাস নির্ভর জায়গা। তৎকালীন ব্রিটিশ এবং তারও আগে আরাকান সাম্রাজ্যের মাধ্যমে রামু হয়ে উঠেছিলো তাদের টার্নিং পয়েন্ট। বেশিরভাগ রামুর প্রাচীন স্থাপনা তৎকালীন রাখাইন কম্যুউনিটি দ্বারা নির্মিত। তারই একটি অংশ রামু থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের লাউয়ে জাদী। রামুর অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক-গবেষক ধনিরাম বড়ুয়ার ইতিহাসনির্ভর বই “রামুর প্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্য” থেকে জানা যায় প্রায় ১৭১০ খ্রিষ্টাব্দে লাউয়ে …

বিস্তারিত পড়ুন

কানা রাজা ও রহস্যভরা সুড়ঙ্গ : রাজা আমলের অদ্ভুত এক উপখ্যান

রামুতে আলোচিত একটি দর্শনীয় স্থানের নাম “কানা রাজার সুড়ঙ্গ” বা “আঁধার মানিক”। এটি রামুর কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের উখিয়ারঘোনা নামক গ্রামে অবস্থিত। এটি একটি গুহা,যার সৃষ্টি প্রাকৃতিকভাবেও হতে পারে, নয়তো কেউ কোন বিশেষ উদ্দেশ্যে এটিকে খননের মাধ্যমে তৈরি করেছিলো কয়েকশত বছর আগে। স্থানীয়ভাবে এই গুহাটি কানা রাজার গুহা নামে পরিচিত। এই গুহার ভেতরের দেয়ালে হাতে আঁকা বুদ্ধের ছবি সহ বৌদ্ধ ধর্মীয় বিভিন্ন ছবি আছে বলে জানা যায়। কিন্তু প্রশ্ন হলো যাঁর নামে …

বিস্তারিত পড়ুন

উঁ খিজারী : অবিভক্ত বাংলার অন্যতম শিক্ষানুরাগী ও দানবীর

খিজারীর জীবন খিজারী’র জন্ম রামুর হাইটুপি মৌজায় লাওয়ের পাড়ায়। পিতার নাম ফাপ্রু সওদাগর। যদিও তাঁর মাতার নাম এখনো জানা যায়নি। তাঁর স্ত্রীর নাম ড মি চ্যান ম্রা [Daw Mi Chan Mra]। বড় ছেলে ক্যা যান হ্লা [Khyaw Zan Hla] এবং ছোট ছেলের নাম কিয়াও হটুন [Khyaw Htoon]। ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে বড় ছেলের বয়স ছিলো ৩৫ বছর এবং ছোট ছেলের বয়স ১৮ বছর। কিয়াও হটুন তখন সেন্ট জেভিয়ার কলেজের জুনিয়র ক্যামব্রিজের ছাত্র। …

বিস্তারিত পড়ুন

সিদ্ধার্থের গৃহত্যাগ : বৌদ্ধ ধর্মের প্রথম পাঠ (২য় পর্ব)

আনন্দিত লাগছে যে, মহৎ একটি কাজে হাত দিতে পেরে। এই লেখাটি একটি অনুবাদকর্ম। গৌতম বুদ্ধের জীবন ও কর্ম নিয়ে লেখা দু’চারটিখানি কথা নয়। মূলত থাইওয়ান বুদ্ধিস্ট এডুকেশনাল ফাউন্ডেশন থেকে প্রাপ্ত কে.শ্রী ধম্মানন্দ ভিক্ষুর লেখা একটি বই “What Buddhists Believe” পড়ার পর মনে হলো মহামতি গৌতম বুদ্ধের মূল জীবন ও কর্ম বইটিতে যেভাবে আছে এর চেয়ে স্পষ্ট এবং সহজ করে কোথাও বর্ণনা করা হয়নি আগে। বিভিন্ন অধ্যায়ে বিভক্ত করে ভালোভাবে বিশ্লেষণ …

বিস্তারিত পড়ুন

“দ্যা ব্যাটল অফ রামু” ভয়াভয় যুদ্ধের ইতিহাস

এইতো সেদিনের কথা। ২০১৮ সালের অক্টোবরে মিয়ানমার সরকার তাদের দেশের একটি জনসংখ্যা গণনা বিষয়ক মানচিত্রে বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপকে সে দেশের অংশ হিসেবে দেখায়। পরে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ডেকে পাঠিয়ে এর প্রতিবাদ করলে মিয়ানমার তাদের ভুলের জন্য ক্ষমা চায়। কিছুদিন পরে তারা আবারো একই কাজ করে ক্ষমা চায়। মিয়ানমারের এই অভ্যাস কিন্তু আজকের নয়, বরং অনেক পুরনো অভ্যাস। ১৮২৩ সালেও তারা একবার শাহপরীর দ্বীপকে তাদের সাম্রাজ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে দাবি …

বিস্তারিত পড়ুন

‘মা’ দিবসের গল্প ও ইতিহাস

আজকের ‘মা’ দিবসের দিনে মা-ছেলের একটা গল্প মনে পড়ে গেল। তখন আমি ক্লাস ফোরে পড়ি। খুবি দুষ্ট আর লজ্জা প্রকৃতির ছিলাম। এখনো অনেকটা এমনই। আমার মা ছিলেন স্বাভাবিক গঠনের চেয়ে একটু খাটো। তখনকার সময়ে আমি মায়ের চেয়ে অবশ্য খাটো ছিলাম। বাবা ছিলেন অনেকটা অন্য প্রকৃতির। তিনি তার কাজ-কর্ম নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন। তিনি আমাদের পড়াশোনার বিষয়ে এতো মাথা ঘামাতেন না। একবার স্কুলে অবিভাবক হিসেবে মা’কে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন পড়েছিল। তখন আমি …

বিস্তারিত পড়ুন

কেমন ছিলো গণ-গ্রন্থাগার উন্মেষ সভ্যতার ইতিহাস

সেই আদিকাল থেকে আজ পর্যন্ত সভ্যতার এই দীর্ঘ পথপরিক্রমায় একের পর এক কীর্তিস্তম্ভ গড়ে তুলেছে মানুষ, সমৃদ্ধ হয়েছে নানা অর্জনে। মানুষের চিরন্তন কীর্তির তালিকায় এমনই একটি অসাধারণ অর্জন গ্রন্থাগার। জ্ঞান সৃষ্টি, সেই জ্ঞানের কাঠামোবদ্ধ সংরক্ষণ এবং এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্মে জ্ঞানের নিরবিচ্ছিন্ন প্রবাহ নিশ্চিত করেছে গ্রন্থাগার। সভ্যতার সেই আদিকাল থেকেই কোনো না কোনো রূপে লিপিবদ্ধ জ্ঞানকে সংরক্ষণ করে আসছে মানুষ। ইতিহাসের একেবারে প্রাথমিক পর্বে গ্রন্থাগারগুলো আধুনিক গ্রন্থাগারের চেয়ে একেবারেই …

বিস্তারিত পড়ুন

ডাইনোসর ও আদম : তুলনামূলক আলোচনা

ডাইনােসর সরিসৃপ গোত্রের প্রাগৈতিহাসিক প্রাণী। পৃথিবীতে এরা বাস করতাে মেসােজোয়িক কালে। ২৩০ মিলিয়ন বছর আগে থেকে ৬৫ মিলিয়ন বছর আগ পর্যন্ত। ডাইনােসর নামটা তৈরি হয়েছে দুটি গ্রীক শব্দকে যুক্ত করে। মানে বিকট বা ভয়ঙ্কর গিরগিটি। ৬৬ মিলিয়ন বছর আগে হুট করেই সব ডাইনােসর এক সঙ্গে মারা যায়। এভাবে চিরতরে হারিয়ে যাবার আগে ১৬০ মিলিয়ন বছরের বেশি সময় ধরে তারা পৃথিবীর প্রায় সব এলাকাতেই দাপটের সঙ্গে টিকে ছিলাে। তখন সমুদ্রগুলােতে ঘুরে …

বিস্তারিত পড়ুন

সংকটাপন্ন ও ক্রান্তির পথে আদিবাসী অস্তিত্ব এবং রাষ্ট্রীয় সরকারের হীন দৃষ্টিভঙ্গী

পার্বত্য চট্টগ্রামের বর্তমান প্রেক্ষাপথ বিবেচনায় আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীর অস্তিত্ব এখন চরম সংকটাপন্ন ও ক্রান্তির অবস্থানে দাড়ানো। পাহাড়ের প্রকৃতিও এখন বেশ হতাশ। যাপিত বাস্তবতার উপত্যকায় দাড়ানো জীববৈচিত্রতার আর্তচিৎকার। প্রকট ধ্বনিত পাহাড়ের ক্রন্দন। সবমিলিয়ে পাহাড় কিংবা পার্বত্য চট্টগ্রামের বাস্তবতা এবং পাহাড়ের সহজ সরল আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীগুলোর অস্তিত্ব ব্যাপক হুমকির মূখে পতিত। একসময় পাহাড় অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমির অনুকূলে বেশ সবুজ ছিলো, কিন্তু এখন আর নেই। সবুজ পাহাড়কে বিবর্ণ করা হয়েছে। চরম বিবর্ণ!!! যে বিবর্ণের হিংস্র …

বিস্তারিত পড়ুন

আদিবাসী লক্ষ লোকের মরণ ফাঁদ, কাপ্তাই বাঁধ!!!

কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণের কাজ ১৯৫২ সালে শুরু হয় এবং শেষ হয় ১৯৬২ সালে।এতে পার্বত্য চট্টগ্রামের মোট ৩৬৯টি মৌজার ১৫২টির মোট ১৮ হাজার পরিবারের প্রায় ১ লক্ষ লোক উদ্বাস্ত হয়।এই ১৮ হাজার পরিবারের ১০ হাজার পরিবার কর্ণফুলী, চেংগী,কাসালং এবং আর ছোট ছোট কয়েকটি নদী উপনদীর অববাহিকার চাষী এবং বাকী ৮ হাজার পরিবার জুম চাষী।ক্ষতিগ্রস্ত সর্বোচ্চ লোককে পূনর্বাচনের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম ম্যানুয়েল সংশোধন করা হয় এবং সংশোধিত ধারায় বলা হয় যে,এখন থেকে …

বিস্তারিত পড়ুন

বাংলাদেশের ই-কমার্সের ইতিহাস

১৯৯৭ সালে ই-কমার্সের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৭১ মতান্তরে ১৯৭২ সালে ARPANET ব্যবহার করে মারিজুয়ানা বিক্রি হয় স্ট্যানফোর্ড আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্ট ল্যাব এর স্টুডেন্টদের সাথে ম্যাসাচুসেট ইন্সটিটিউট অফ টেকনলজির স্টুডেন্টদের মধ্যে। ১৯৭৯ সালে মাইকেল আল্ড্রিচ প্রথম অনলাইন শপিং এর ডেমো দেখান।শুররু দিকের ই-কমার্স আজকের মত ছিল না তখন ব্যবসায়ীরা নিজেদের সুবিধার্থে অনলাইনে কেনাকাটা করত।অর্থ্যাৎ এটা ছিল বি২বি।বর্তমানে চার ধরনের ই কমার্স দেখা যায় ।যথা বিটুবি , বিটুসি,সি২সি,বি২জি।বিটুবি হচ্ছে বিজনেসঅম্যান টু বিজনেসম্যান অর্থ্যাৎ …

বিস্তারিত পড়ুন

হিলফ উল ফুজুল সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আসলে কে

ইসলাম পূর্ব যুগে হিলফ উল ফুজুল নামে এক বিরাট সমাজ কল্যাণ সংগঠন প্রতিষ্ঠা হয়। যার প্রভাব ছিল সুদূর প্রসারী। যেটা বিভিন্ন সময়ে আরবে শান্তি স্থাপনে এবং মুক্তমত প্রচারে বিরাট ভূমিকা পালন করে। মুসলিম রচিত বিভিন্ন পত্রিকার রিপোর্ট, বহুসংখ্যক পুস্তক এবং বাংলাদেশের প্রতিটা পাঠ্যবইএ এর প্রতিষ্ঠা নিয়ে ব্যাপক মিথ্যাচার করা হয়েছে। এবং করা হয়েছে তা পরিকল্পিতভাবে। ঐসব লেখায় দাবি করা হয়েছে ঐ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন হযরত মুহাম্মদ। এমনকি বাংলা উইকিপিডিয়ায়ও এর …

বিস্তারিত পড়ুন

ভাষা আন্দোলনের পারমার্থিক পর্যালোচনা

ভাষা আন্দোলন ও পরমার্থ এই দুটো ব্যাপার ভালভাবে না বুঝলে আমরা শিরোনাম সংক্রান্ত বিষয়ে প্রবেশ করতে পারবনা৷ আমাদের ভালভাবে বুঝে নিতে হবে দুটি বিষয়, তারপর হতে পারে পর্যালোচনা। কিন্তু তার আগে ফয়সালা করা প্রয়োজন কেন পারমার্থিক পর্যালোচনা দরকার। আমরা তো পর্যালোচনার করার জন্য কত রকম পদ্ধতির নাম শুনেছি ; মার্ক্সীয় পদ্ধতি, উদারনৈতিক পদ্ধতি ইত্যাদি পদ্ধতি ব্যবহার করে আমরা পর্যালোচনা করে থাকি। তাই শেষ কালে আমি যখন আলাদা কথা বলব তখন আমার …

বিস্তারিত পড়ুন

বৌদ্ধ পণ্ডিত বিশ্ববিদ্যালয়

দশম শতকের প্রথমার্ধে চট্টগ্রাম পট্টিকারা (বর্তমান পটিয়া) চন্দ্রবংশের রাজাদের শাসনাধীন ছিল । এই চন্দ্র রাজবংশের সাথে আরাকানের চন্দ্ররাজ বংশের বৈবাহিক সম্পর্ক তথা জ্ঞাতি সম্পর্ক ছিল । পট্টিকারা চন্দ্র রাজবংশের শাসনকালে চট্টগ্রামে পণ্ডিত বিহার বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয় । তিব্বত বিশেষজ্ঞ পণ্ডিত শরচ্ছন্দ্র দাস (১৮৪১-১৯৯১ সাল) ও লামা তারানাথ তিব্বতি গ্রন্থ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে কিছু তথ্য জানা যায় । শুরুর দিকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে মহাযান বা তান্ত্রিক বৌদ্ধ ধর্ম বিষয়ক শিক্ষা প্রদান করা …

বিস্তারিত পড়ুন

ঠেগরপুণি মেলার ইতিহাস

পঞ্চদশ শতাব্দীতে ঠেগরপুনি গ্রামে অবস্থান করতেন চকরিয়া নিবাসী রাজমঙ্গল মহাস্থবির। চন্দ্রজ্যোতি ভিক্ষু কর্তৃক ব্রক্ষদেশ থেকে আনিত একটি ত্রিভঙ্গ বুদ্ধমূর্তি তার পিতৃব্য রাজমঙ্গল মহাস্থবির ঠেগরপুনি গ্রামের বিহারের পার্শে কাঠের ঘর প্রতিষ্ঠা করেন ৷ তৎকালীন চিরিজিয়া নামী একজন স্ত্রীলোক ঠেগরপুনি গ্রামে একটা বুদ্ধ মন্দির নির্মান করে দেন । মন্দিরে অতি প্রাচীন কালের কালবর্ণ প্রস্তরের বুদ্ধ মূর্ত্তি স্থাপিত আছে । বরিয়া গ্রামের প্রেতরাম বড়ুয়া ও ঠেগরপুনি গ্রামের শ্রীযুক্ত ধর্ম্ম সিংহ বড়ুয়া প্রত্যেকে এক …

বিস্তারিত পড়ুন

কর্তালা বেলখাইন মহাবোধি উচ্চ বিদ্যালয়ের ইতিহাস

প্রাচীন নাম: কর্তালা বেলখাইন মধ্য ইংরেজী স্কুল । প্রতিষ্ঠা: ১৯১১ সাল, আমার গবেষণা তার ও আগে হতে পারে । বর্তমান নাম: কর্তালা বেলখাইন মহাবোধি উচ্চ বিদ্যালয় । প্রতিষ্ঠা: ১৯৩৪ সাল, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কতৃক স্বীকৃতি প্রাপ্ত । প্রতিষ্ঠাতা: ডা: শান্ত কুমার চৌধুরী প্রথম শিক্ষক: অতিন্দ্র লাল চৌধুরী, নীলাম্বর বড়ুয়া (জলদী,বাশখালী) প্রথম প্রধান শিক্ষক: কংগ্রেস নেতা অধ্যাপক সুরেন্দ্র নাথ বড়ুয়া (চত্তরপটিয়া, পটিয়া), প্রেমানন্দ বড়ুয়া (নাইখাইন, পটিয়া) ভূমিদান: তথ্যের অভাবে ভূমিদাতাদের নাম দিতে …

বিস্তারিত পড়ুন

পাকিস্তান আমল,প্রেক্ষিত পার্বত্য চট্টগ্রাম

বিংশ শতকের চল্লিশ দশকের মাঝামাঝি সময়ে পাকিস্তান আন্দোলন যখন জোরদার হতে থাকে তখন ত্রিপুরা রাজ্যের শেষ মহারাজা বীরবিক্রম উত্তরপূর্ব ভারতের উপজাতি অধ্যুষিত এলাকাগুলো নিয়ে একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র গঠনে উদ্যোগী হন।কিন্তু তিনি সফল হতে পারেন নি।পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন রাজা এবং নেতাসহ অন্যান্য উপজাতি অঞ্চলের নেতৃবৃন্দ তাকে সমর্থন করেনি।১৯৪৭ সালের মে মাসে মহারাজার মৃত্যু হয় এবং তাঁর মৃত্যুর সাথে সাথে সেই উদ্যোগেরও মৃত্যু ঘটে।অতপর মুসলীম লীগের দ্বিজাতিতত্ত্ব এবং মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দাবি …

বিস্তারিত পড়ুন

বীর মুক্তিযোদ্ধা অরুণ নন্দী ; বাংলাদেশের সুপারহিরো

তখন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। প্রতিদিন শত শত মুক্তিযোদ্ধা ট্রেনিং নিয়ে যুদ্ধে যোগ দিচ্ছেন মাতৃভূমিকে মুক্ত করার প্রতিজ্ঞা নিয়ে। সেই সময় কলকাতার মাটিতে শরণার্থী ছিলেন বাংলাদেশের এক সন্তান, নাম অরুণ নন্দী। নিজের জন্মভূমির এ দুঃসময়ে তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন দেশের জন্য কিছু একটা করার, একেবারেই অন্যরকম কিছু। অন্ত্র হাতে নিয়ে শত্রুর বুকে গুলি চালানোর সামর্থ্য তার আছে। তবে তারচেয়েও বড় এক প্রতিভার অধিকারী তিনি, বিরতিহীন সাঁতরে যাবার অসাধারণ ক্ষমতা আছে …

বিস্তারিত পড়ুন

কিছু কথা,প্রেক্ষিত পাহাড়

রাঙ্গামাটি,বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি জেলা নিয়ে গঠিত “পার্বত্য চট্টগ্রাম”।পার্বত্য চট্টগ্রামকে ঘিরে গড়ে ওঠা সৌন্দর্যের লীলাভূমি বিশাল বিশাল সুউচ্চ পাহাড়।দেশের অন্যান্য জায়গা থেকে এই পাহাড়ের অর্থাৎ পার্বত্য চট্টগ্রামের বৈচিত্রটা যেমনি আলাদা, তেমনি আলাদা পাহাড় এবং পাহাড়ের বুকে বসবাস করা প্রকৃতিপ্রেমী প্রাণবন্ত সহজ সরল সাদামাটা পাহাড়ী মানুষগুলোর ইতিহাস।পাহাড়ের বুকে বসবাসরত ১৩ ভাষাভাষি ১৪টি জুম্ম জাতীসত্তার মানুষগুলো ইস্পাত সংগ্রামী এবং প্রকৃতিপ্রেমীও বটে।তারা প্রতিনিয়ত পাহাড় প্রকৃতির সাথে সংগ্রাম করে, বেঁচে থাকার তাগিদে,দু বেলা দু-মুতো অন্ন …

বিস্তারিত পড়ুন
error: আমার কলম কপিরাইট আইনের প্রতি শ্রদ্ধশীল সুতরাং লেখা কপি করাকে নিরুৎসাহিত করে। লেখার নিচে শেয়ার অপশন থেকে শেয়ার করার জন্য আপনাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।