লালু

সীমান্ত বড়ুয়াঃ  সকাল ১০টা। পুরনো ধাঁচের দোতলা বাড়ির গেইটে ছোট্ট একটা সাইনবোর্ডে লেখা “রহমান ম্যানশন”। বাড়ির উঠোনে জনাব ফারুখ রহমান সাহেব বেতের মোড়ায় বসে আছেন। রোদ এসে ঠেকছে তার গায়ে কিন্তু তিনি উঠছেন না। একটু পর পর তার কপালে ভাজ পড়ছে । খুব চিন্তিত দেখাচ্ছে তাকে। ফারুখ সাহেব সিগারেট ধরালেন। এ নিয়ে পর পর দুইটা সিগারেট ধরানো হলো। সচরাচর এমনটা করেন না তিনি। ফারুখ সাহেবের অভ্যাস হলো সিগারেট খাওয়ার সময় …

বিস্তারিত পড়ুন

আরজ আলী মাতুব্বর : মুক্তচিন্তা ও যুক্তিবাদী দার্শনিক

আরজ আলী মাতুব্বর ১৯০০ সালের ১৭ই ডিসেম্বর (বাংলা ১৩০৭ বঙ্গাব্দের ৩রা পৌষ) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতে বরিশাল জেলার অন্তর্গত চরবাড়িয়া ইউনিয়নের লামছড়ি গ্রামে এক দরিদ্র কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম এন্তাজ আলী মাতুব্বর। তার মা অত্যন্ত পরহেজগার ছিলেন। পরিবারে তারা ছিলেন পাঁচ ভাইবোন। আরজ আলী মাতুব্বরের প্রকৃত নাম ছিলো ‘আরজ আলী। আঞ্চলিক ভূস্বামী হওয়ার সুবাদে তিনি ‘মাতুব্বর’ নাম ধারণ করেন। আরজ আলী নিজ গ্রামের মুন্সি আবদুল করিমের মসজিদ দ্বারা …

বিস্তারিত পড়ুন

হঠাৎ দেখা সভ্যতা

কর্মব্যস্ত শহরে হাঁটতে হাঁটতে হঠাৎ দেখা হলো রিমির সাথে। জন-লোকারণ্যে কাঁধে ব্যাগ নিয়ে ছুটছে রিমি, গন্তব্য নিশ্চয় কর্মস্থল। সংসার আর সুখের ছোঁয়া পেতে কতোই না কষ্ট, সে খবর কেবল রিমি জানে এখন।প্রায় দু’বছর আগে কলেজ, বন্ধু, প্রেম আঁকড়ে ধরেছিলো রিমিকে। আর এখন কেবল সংসারের চিন্তা গ্রাস করছে রিমিকে। অনাথ আশ্রম, সামাজিকতার বেড়াজালে বন্দী গ্রাম আর বাবাহীনতা একটি মেয়েকে এখনো জর্জরিত করে। ১০শে আষাঢ় প্রবল বাতাসে রাস্তার ধারের টং এ বসে …

বিস্তারিত পড়ুন

বড়ুয়া’রা ‘মগ’ নয় !

মগ প্রথমত চট্টগ্রাম গালির ভাষা হিসেবে ব্যবহার শুরু হয়েছিলো । অন্থানীয় বা অচট্টগ্রামীরা চট্টগ্রামীদের মগ বলে হেয় করতে চাইত । যা হোক, মগের নামে একটা সম্প্রদায় ছিল এখন ও আছে । মগ আরাকান নিবাসী জাতি বিশেষ । জাতিতত্ত্ববিদেরা এদের ইন্দো-চীন নিবাসী বলে মনে করেন । সাধারণত মগ বলতে আরাকানীদের বুঝায় । আরাকানীরা চট্টগ্রামের কিছু অংশ, কখনো পুরো অংশ শাসন করেছে । স্থানীয় বৌদ্ধদের উপর মগদের শাসন যেমন ছিল ত্রিপুরাধিপতিদের শাসন, …

বিস্তারিত পড়ুন

বিদ্যাসাগরের “নতুন মানুষ”

“এদেশের উদ্ধার হইতে বহু বিলম্ব আছে।পুরাতন প্রকৃতি ও প্রবৃত্তি বিশিষ্ট মানুষের চাষ উঠাইয়া দিয়া সাত পুরুমাটি তুলিয়া ফেলিয়া নতুন মানুষের চাষ করিতে পারিলে, তবে এদেশের ভাল হয়।” -ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বিদ্যাসাগর মহাশয়ের এই কথাটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। এই কথাটি দ্বারা আমরা তাঁর চিন্তাধারার বা মতামতের হদিশ করতে পারি। বস্তুত বিদ্যাসাগরের যথাযথ পর্যালোচনা ছাড়া কখনও আমরা অগ্রসর হতে পারবনা।তিনি যে জিজ্ঞাসা, যে তর্কসমূহ উত্থাপন করেছিলেন তার যথাযথ বোঝাপড়া আজও হয়নি বলে আমাদের এই …

বিস্তারিত পড়ুন

শান্তির দূত কফি আনান

প্রথমবারের মত কোনো কালো ব্যক্তি  জাতিসংঘের মহাসচিব হয়েছিলো।কফি আনান,পুরো নাম কফি আত্তা আনান।১৯৩৮ সালের ৮ ই এপ্রিল আফ্রিকার দেশ ঘানাতে যার জন্ম।বাবা ছিলেন একজন প্রাদেশিক গভর্নর,শিক্ষা জীবনের প্রথম ধাপ ঘানাতেই কেটেছিলো, পরবর্তীতে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। ১৯৬২ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাজেট অফিসার হিসেবে শুরু করেন কর্মজীবন। ১৯৯৭ সালে জাতিসংঘের সপ্তম মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পান।তার সময়ে পৃথিবী দুইটি বড় সংকটে পড়ে একটি হচ্ছে ইরাক যুদ্ধ এবং অপরটি হচ্ছে এইডস। দুইক্ষেত্রেই তিনি ছিলেন সরব।ইরাক যুদ্ধের বিরোধিতা …

বিস্তারিত পড়ুন

চর্যাপদ : বাংলা সাহিত্যের পথ প্রদর্শক

বাংলায় মুসলমান আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হবার আগে ব্রাহ্মণ্য হিন্দুসমাজের পীড়নের আশঙ্কায় বাংলার বৌদ্ধগণ তাঁদের ধর্মীয় পুঁথিপত্র নিয়ে শিষ্যদেরকে সঙ্গী করে নেপাল, ভুটান ও তিব্বতে পলায়ন করেছিলেন, এই ধারণার বশবর্তী হয়ে হরপ্রসাদ শাস্ত্রী চারবার নেপাল পরিভ্রমণ করেন। ১৮৯৭ সালে বৌদ্ধ লোকাচার সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহের জন্য তিনি প্রথমবার নেপাল ভ্রমণ করেন। ১৮৯৮ সালের তার দ্বিতীয়বার নেপাল ভ্রমণের সময় তিনি কিছু বৌদ্ধ ধর্মীয় পুঁথিপত্র সংগ্রহ করেন। ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে তৃতীয়বার নেপাল ভ্রমণকালে চর্যাচর্যবিনিশ্চয় নামক একটি …

বিস্তারিত পড়ুন

নিরাপদ সড়ক চাই ,জেনারেশন নকিং দ্যা ডোর

সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামছেই না। আর স্বজনদের আর্তনাদে প্রতিদিন ভারী হচ্ছে বাংলার আকাশ। যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলছে ২০১৭ সালে দেশে ৪ হাজার ৯৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৩৯৭ জন নিহত ও ১৬ হাজার ১৯৩ জন আহত হয়েছে। সে হিসাবে দেশে প্রতিদিন ২০ লোক সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যায়। যাত্রী কল্যাণ সমিতি আরও বলছে,২০১৬ সালের তুলনায় ২০১৭ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের হার ২২.২ শতাংশ বেশি ছিল। এছাড়া দুর্ঘটনার হারও ১৫.৫ শতাংশ বেশি …

বিস্তারিত পড়ুন

তোমাদের প্রতি শতকোটি সালাম

এই তরুণরাই ইতিহাস-ঐতিহ্যকে ধারণ করবে- এরাই ইতিহাস গড়বে। তারা বায়ান্না দেখেনি, একাত্তর দেখেনি- তারা একবিংশ শতাব্দীর স্বৈরাচারী সরকার, ফ্যাসিবাদী সরকারকে দেখেছে। তারা দেখেছে এই সরকারের আমলে ছাত্রদের উপর অন্যায়-অত্যাচার। ছাত্রীদেরকে ধর্ষণ করে মেরে ফেলা, তারা দেখেছে ‘কোটা সংস্কার’ আন্দোলনকর্মীদের উপর জুলুম- তারা আরো সাক্ষী হলো জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র আরিফুলের লাশের। তাদের সহপাঠীদেরকে মেরে রক্তাক্ত করার সাক্ষীও তারা। তাদের কাছে আন্দোলনের অনেক উপাদানই রয়েছে। এই বয়সেই তো পুরো পৃথিবীকে পরিবর্তন করা …

বিস্তারিত পড়ুন

‘মুখোশ ও মুখশ্রী’ নামধারী বুদ্ধিজীবীদের ‘মেধা’ আর ‘মেদের’ মধ্যে তফাৎ নেই : গ্রন্থ পর্যালোচনা

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী লিখিত ‘মুখোশ ও মুখশ্রী’ বইটি শেষ করার মধ্যদিয়ে এটুকু আরও পরিষ্কার হলো যে, জানার কোনো শেষ, শেখার কোনো শেষ নেই- জীবন মানেই জানা আর শেখা। আর সেই জানাকে কাজে লাগানোর জন্য, মানুষের জন্য কিছু করার জন্য- মানুষের মধ্যে নিজের জ্ঞানকে বিতরণ করার ক্ষুদ্র প্রয়াস এ লেখাটি। একইসাথে এ লেখার মতামত পেলে নিজেকে বিকশিত করতেও সহযোগিতা করবে বলে প্রত্যাশা করছি। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম বন্ধু বই। এখন পর্যন্ত এই সত্যটিকে …

বিস্তারিত পড়ুন

অবাধ্য ধর্ষণ : স্বপ্নে পূর্ণার ছিন্নভিন্ন দেহটি ভেসে উঠে

ধর্ষণ আজকাল আর ভাবায় না- ইতিহাস-ঐতিহ্যের অংশ হয়ে গেছে। স্ত্রীলিঙ্গ নিয়ে জন্ম নিবে আর ‘ধর্ষণ’ হবে না তা আবার কেমন কথা! তার মধ্যে স্ত্রীলিঙ্গ নিয়ে জন্ম নেওয়া নারী ও শিশুটি যদি হয় দুর্বলচিত্তের- তার শ্রেণীগত অবস্থান যদি হয় শোষিতশ্রেণী। তাহলে তো আর কথাই থাকে না! আবার যদি হয় অন্য জাতিগোষ্ঠির! সবই সম্ভব তো এই রাষ্ট্রে। নতুন কিছু না তো, সবই পুরাতন কাহিনী। আমরা বোকারাই ভাবি, কষ্ট পাই, দুঃখ পাই- অগোচরে …

বিস্তারিত পড়ুন

এই ধর্ষণকামী রাষ্ট্রব্যবস্থার পরিবর্তন চাই

চারদিকে নির্বাচনী হাওয়া। কয়লা চুরি, স্বর্ণ চুরি কোনোকিছুই নির্বাচনী হাওয়ায় প্রভাব ফেলতে পারছে না। আর তো সামান্য শিক্ষার্থীদের মৃত্যু, ১০ বছরের শিশু কন্যা ধর্ষণ! হাস্যকরই বটে! কেউ কেউ তো মিটিমিটি হাসছে- আরে মরছে তো ত্রিপুরা কন্যা তাতে এমন কি আর হয়েছে বলে স্বস্তির নিশ্বাসও ফেলছে! কেউ তো রীতিমতো গবেষণায় নেমেছে মেয়েটির পোশাক ঠিক ছিল কিনা! হুম! খারাপ শুনালেও এ কথাগুলোই ঠিক। আর শিক্ষার্থী দের মৃত্যু ও তো নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। এত …

বিস্তারিত পড়ুন

ভারত শাসন আইন ও বৌদ্ধদের নবজাগরন

১৯৩৫ সালে ভারত শাসন আইনটি ছিল সুবৃহৎ দলিল । ভারতের রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে ১৯২৭ সালে গঠিত হয় সাইমন কমিশনের রির্পোট প্রকাশিত হয় ১৯৩০ সালে । কিন্তু ভারতীয়রা এই রির্পোট প্রত্যাখ্যান করেন । ভারতের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কথা চিন্তা করে এর সমাধানের নিমিত্তে সরকার ১৯৩০-১৯৩২ সালের মধ্যে তিনটি গোল টেবিল বৈঠক করেন । কিন্তু সেগুলা ব্যর্থ হয় । ইতিমধ্যে ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রী সাম্প্রায়িক রোয়েদাদ ঘোষনা করেন । বিভিন্ন দল ও সম্প্রাদায় …

বিস্তারিত পড়ুন

জনগণের নতুন সংস্কৃতি প্রসঙ্গে

আমাদের দেশের শ্রমিক-কৃষকরা সংস্কৃতি কতটা বুঝবে? সাহিত্য শিল্প তাদের মনে কতটুকু দাগ কাটতে পারবে? এটা খুব কমন একটি প্রশ্ন! ভাসির্টি পড়ুয়া বেশিভাগ ছেলেমেয়েরা ভাবতেই পারেন না, উচ্চতর প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি না থাকা শ্রমিক ও কৃষকরা সংস্কৃতি বুঝে, শিল্প বুঝে। কিছুদিন আগে ঢাবি পড়ুয়া এক আপু বেশ গর্ব করেই বলছিলেন, ‘অশিক্ষিতরা যদি শিল্পী হয়, তবে পাঁচ বছর ধরে ঢাবিতে পড়ে আর কী লাভ, কি দরকার!’- বেশ দম্ভ নিয়ে কথাটা বলছিলেন তিনি। আমি …

বিস্তারিত পড়ুন

গ্রাম পাঠাগার আন্দোলন, সমাজ পরিবর্তনের অন্যতম হাতিয়ার

গ্রাম আমাদের বর্ণনা করার মতো অসংখ্য স্মৃতির সাক্ষী। এজন ব্যক্তির স্মৃতির পাতায় গ্রাম শব্দটি না থাকলে স্মৃতিগুলো কেমন জানি ফেকাসে হয়ে যায়।অনেক দিনের স্বপ্ন ছিলো একটা পাঠাগার করবো এবং গ্রামের সাধারণ ছেলে-মেয়েরা পাঠাগারে নানান বই পড়বে এবং জ্ঞান অর্জন করবে, অবশেষে আমরা আমাদের স্বপ্ন বাস্তবায়িত করেছি। বিশেষ করে গ্রামে গ্রামে তেমন একটা পাঠাগার দেখা যায় না। সারা বাংলাদেশ ঘুরলে আপনি হাতে গোনা কয়েকটি গ্রামে পাঠাগার দেখতে পাবেন। কিন্তু প্রত্যেক গ্রামে …

বিস্তারিত পড়ুন

কার্ল মার্ক্স : জীবন ও দর্শন

কার্ল হাইনরিশ মার্ক্স (জার্মান: Karl Heinrich Marx জার্মান উচ্চারণ: [kaːɐ̯l ˈhaɪnʀɪç ˈmaːɐ̯ks] ) (৫ই মে, ১৮১৮ – ১৪ই মার্চ, ১৮৮৩) একজন প্রভাবশালী জার্মান সমাজ বিজ্ঞানী ও মার্ক্সবাদের প্রবক্তা। জীবিত অবস্থায় সেভাবে পরিচিত না হলেও মৃত্যুর পর সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের কাছে তিনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেন। বিংশ শতাব্দীতে সমগ্র মানব সভ্যতা মার্ক্সের তত্ত্ব দ্বারা প্রবলভাবে আলোড়িত হয়। সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতন্ত্রের পতনের পর এ তত্ত্বের জনপ্রিয়তা কমে গেলেও তাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে মার্ক্সবাদ এখনও অত্যন্ত …

বিস্তারিত পড়ুন

সুলতানা রাজিয়া দিল্লির সিংহাসনে বসা একমাত্র নারী শাসক

সুলতানা রাজিয়া, ইতিহাসে আলোড়ন সৃষ্টিকারী একটি নাম। ভারতবর্ষের ইতিহাসে দিল্লির সিংহাসনে বসা একমাত্র নারী। ৮০০ বছর আগে শাসন করেছেন গোটা ভারতবর্ষ। তিনি ছিলেন ভারতবর্ষের প্রথম নারী শাসক। এ ছাড়াও একজন যোগ্য সুলতান ও যুদ্ধক্ষেত্রে একজন দক্ষ সৈনিক হিসেবে ছিলো তার সুখ্যাতি। তীক্ষ বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে তিনি রাজকার্য পরিচালনা করেছিলেন।সুলতানা রাজিয়া জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১২০৫ সালে। দৃপ্ত কঠিন ক্ষণজন্মা এই নারীর জীবন প্রদীপ নিভে গিয়েছিল খুব অল্পদিনেই। সুলতানা রাজিয়ার বাবা শামস-উদ-দীন ইলতুৎমিশ ছিলেন …

বিস্তারিত পড়ুন

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ; একজন অগোচর নায়ক

তাজউদ্দীন আহমদ (২৩ জুলাই ১৯২৫ – ৩ নভেম্বর ১৯৭৫) বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম নেতা। তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব সাফল্যের সাথে পালন করেন। একজন সৎ ও মেধাবী রাজনীতিবিদ হিসেবে তাঁর পরিচিতি ছিল। তাজউদ্দীন আহমদ মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন যা মুজিবনগর সরকার নামে অধিক পরিচিত। স্বাধীনতা পরবর্তীকালে তিনি বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী হিসাবে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৫ সালে …

বিস্তারিত পড়ুন
কামসূত্র

বিখ্যাত বই কামসূত্র ও যৌনবিজ্ঞান

কামসূত্র (সংস্কৃত: कामसूत्र বা কামসূত্রম এই শব্দ সম্পর্কে pronunciation, Kāmasūtra প্রাচীন ভারতীয় পণ্ডিত মল্লনাগ বাৎস্যায়ন রচিত সংস্কৃত সাহিত্যের একটি প্রামাণ্য মানব যৌনাচার সংক্রান্ত গ্রন্থ। গ্রন্থের একটি অংশের উপজীব্য বিষয় হল যৌনতা সংক্রান্ত ব্যবহারিক উপদেশ। গ্রন্থটি মূলত গদ্যে লিখিত; তবে অনুষ্টুপ ছন্দে রচিত অনেক পদ্যাংশ এতে সন্নিবেশিত হয়েছে। কাম শব্দের অর্থ ইন্দ্রিয়সুখ বা যৌন আনন্দ; অপরদিকে সূত্র শব্দের আক্ষরিক অর্থ সুতো বা যা একাধিক বস্তুকে সূত্রবদ্ধ রাখে। কামসূত্র শব্দটির অর্থ তাই …

বিস্তারিত পড়ুন

কমিউনিস্টরা বিভ্রান্ত, উত্তরণের উপায়

রাষ্ট্র গঠনের উপাদান হল, সার্বভৌমত্ব, জনগণ, ভূমি ও প্রশাসন। চারটি উপাদান থাকলে আমরা তাকে রাষ্ট্র বলতে পারি। কমরেড লক্ষ্য করুন, সামন্তযুগে বুর্জোয়াদের রাষ্ট্র ছিল না। তারা রাজার অধীনে সামন্তসমাজে বসবাস করত। তাদের কর্তৃত্ব বলতে কিছু ছিল না। রাজা-জমিদারদের অত্যাচার শোষণ থেকে মুক্তির জন্য তারা আন্দোলন সংগ্রাম করে, শ্রেণিসংগ্রাম করে এবং রাজতন্ত্র ও ধর্মতন্ত্র উচ্ছেদ করে ইউরোপীয় ও মার্কিনীয় বুর্জোয়ারা তাদের ধনীর জাতীয়তার ভিত্তিতে রাষ্ট্র প্রস্তুত করল। তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসার, অধিক …

বিস্তারিত পড়ুন
error: আমার কলম কপিরাইট আইনের প্রতি শ্রদ্ধশীল সুতরাং লেখা কপি করাকে নিরুৎসাহিত করে। লেখার নিচে শেয়ার অপশন থেকে শেয়ার করার জন্য আপনাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।